পাইকারি পান সুপারীর দিঘলিয়ার বারাকপুরের বৃহত্তর বাজারের বেহাল অবস্থা

Header

রিপোর্টিং,নিজস্ব প্রতিনিধি,খুলনা : খুলনা জেলার দিঘলিয়া উপজেলার ঐতিহ্যবাহী সাবেক সন্ন্যাসীর হাট বর্তমানে বারাকপুর বাজার নামে পরিচিতি,বর্তমানে এই বারাকপুর বাজারে খুলনা জেলার বৃহত্তর পাইকাড়ি পান সুপারির হাট বসে,প্রতিদিন সকাল এগারোটা বাজার সাথে সাথে দিঘলিয়া উপজেলা সহ যশোর,নড়াইল জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে পান চাষীরা,পান-সুপারি নিয়ে ভিড় জমায় উক্ত হাটে।

পাইকারি ক্রেতারা খুলনা,ঢাকা সহ দেশের বাইরের থেকে ছুটে আসে এই বারাকপুরের পান-সুপারির বাজারে। ক্রেতা-বিক্রেতারা এই প্রতিবেদককে অভিযোগ করে বলেন, উক্ত বারাকপুরের পাইকারি পান সুপারির বাজার বিভিন্ন সমস্যায় জর্জরিত জায়গার স্বল্পতা, পায়খানা,প্রস্রাবের নির্দিষ্ট কোনো সু-ব্যবস্থা নাই, বিশুদ্ধ খাবার পানির তীব্র সংকট,ময়লা আবর্জনায় ভরপুর।

মাছের বাজার ও কাঁচা তরি তরকারির বেচাকেনার জায়গায় গাদাগাদি করে বসতে হয়,পানের বোঝা মাথায় নিয়ে চলাচলের বিকল্প কোন রাস্তা ও নাই। উক্ত বাজারের ভূমি অফিসের পুরাতন বিল্ডিং এর বারান্দা দখল করে চলছে বেছা কিনা,উক্ত বাজার বণিক সমিতির সভাপতি গাজী নাসির উদ্দিন মাহমুদ এর নিকট বাজারের বেহাল অবস্থা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন,২০১৮ সালে এই পাইকারি পান—সুপারির ক্রেতা ও বিক্রেতারা বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ছুটি আসে আমাদের এই বাজারে জায়গার সুব্যবস্থা করা সম্ভব হয় নাই।

ads

উক্ত জায়গায় ব্যবসা পরিচালনা করতে বিভিন্ন সমস্যা সহ-নানান জটিলতার সম্মুখীন হতে হয়। ক্রেতা-বিক্রেতাদের অভিযোগ প্রতিনিয়তই,উক্ত বারাকপুর বাজারটির জায়গা কিছু ব্যক্তি মালিকানা ও কিছু জায়গা সরকারি হওয়ায় জটিলতার সৃষ্টি হয়েছে। বারাকপুর বাজার বনিক সমিতির নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মরহুম গাজী জাকির হোসেনের সময়কালে কিছু সহিংসতার কারণে, বারাকপুর বাজারের উন্নয়ন হয়নি বলে ধারণা।

বাজারের পুরাতন অযোগ্য ঝুঁকিপূর্ণ স্থাপনা ভেঙ্গে নতুন অবকাঠামো তৈরি করা হলেই তখন বাজারের প্রত্যেক দোকানদারের সকল সমস্যা দূর হবে। দিঘলিয়া উপজেলা প্রশাসন সহ-সংশ্লিষ্ট সকল দপ্তরের দায়িত্বপ্রাপ্তদের নিকট আবেদন, বারাকপুরের পাইকারি পান-সুপারির ক্রেতা-বিক্রেতাদের বিস্তীর্ণ জায়গা দেওয়া সহ-সকল সমস্যা লাঘব হবে ক্রেত-বিক্রেতাদের দাবি,অচিরেই বাজারের সকল চিহ্নত সমস্যার সমাধান করে বাজারের পরিবেশ সুন্দর করে গড়ে তোলা হোক এটাই সকল ক্রেতা-বিক্রেতাদের দাবি।

ads

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *